সরকার-জনগণ একসঙ্গে কাজ করলে জলবায়ু সমস্যায় দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া সম্ভব

প্রকাশিত: ১০:৩৯ এএম, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১
  • শেয়ার করুন

বাংলাদেশ জলবায়ু সহনশীলতা অর্জনের জন্য আন্তরিকভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) কেনিয়ার নাইরোবিতে চলমান জাতিসংঘের পরিবেশ পরিষদের পঞ্চম অধিবেশনে (ইউএনইএ-৫) মন্ত্রী তার ঢাকাস্থ সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেছেন।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ পরিবেশবান্ধব উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় নীতিমালা ও নিয়ন্ত্রণমূলক কাঠামো তৈরি করেছে। জলবায়ু পরিবর্তনের শিকার বাংলাদেশ, জলবায়ু সহনশীলতা অর্জনের জন্য আন্তরিকভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ জলবায়ু সহিষ্ণু উন্নয়নের জন্য প্রতিবেশগত পদ্ধতি অন্যভাবে বললে প্রকৃতিভিত্তিক সমাধানের পদ্ধতি গ্রহণ করেছে।

শাহাব উদ্দিন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে জলবায়ু, প্রকৃতি ও উন্নয়নকে অন্তর্ভুক্ত করে ন্যায্য, অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং উচ্চাকাঙ্ক্ষী পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। বাংলাদেশ পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ ও জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কিত বিষয়গুলোকে উন্নয়ন কৌশলে অন্তর্ভুক্ত করেছে। সরকার এবং জনগণ একসঙ্গে কাজ করার মাধ্যমে এসব সমস্যা সমাধানে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া সম্ভব হবে।

পরিবেশমন্ত্রী আরও বলেন, মহামারি পরবর্তী সবুজ প্রকৃতি পুনরুদ্ধারের জন্য কোথায় সম্পদের যোগান দিতে হবে তা নির্ধারণ করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। উদাহরণস্বরূপ, প্যারিস চুক্তির ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি তাপমাত্রা হ্রাসের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ২০৩০ সালের মধ্যে প্রয়োজনীয় বৈশ্বিক প্রশমন পদক্ষেপের এক তৃতীয়াংশ সরবরাহের সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও বৈশ্বিক জলবায়ু অর্থের শতাংশ এরও কম প্রকৃতিভিত্তিক সমাধানের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে। আমরা যদি সবার জন্য পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়াটি দ্রুত, সস্তা এবং সহজ করে তুলতে চাই তবে বিশ্বের সরকারগুলোকে অবশ্যই একসঙ্গে কাজ করতে হবে।